বিজয়ের ৫০ বছর কিন্তু খন্দকার মোশতাকরা এখনো সক্রিয় মাঠে

প্রকাশিত: ৫:১৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৯, ২০২১

বিজয়ের ৫০ বছর কিন্তু খন্দকার মোশতাকরা এখনো সক্রিয় মাঠে

নিউজ  ডেস্ক , ঢাকাঃ  বাংলাদেশের ইতিহাসে জঘন্যতম বিশ্বাসঘাতক হিসেবে যে নামটি সবার আগে আসে, তা হলো খন্দকার মোশতাক আহমদ। বন্ধু হিসেবে বুকে টেনে নেওয়া জাতির পিতার হত্যার মূল পরিকল্পনায় ছিলেন এই বিশ্বাসঘাতক। জাতির পিতাকে হত্যার পরপরই নিয়েছিলেন রাষ্ট্রপতির দায়িত্বও। এমন অনেক নরপিশাচরা নিজেদের স্বার্থ হাসিল করতেই ঘাতক মোস্তাকদের মত ভালো মানুষ সেজে ঘুরে বেড়াচ্ছেন আমাদের আশেপাশেই । এমনি জলজ্যান্ত উদাহরণ এখন বাকেরগঞ্জের ১নং চরামদ্দি ইউনিয়নে। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এবং সাধারন জনগনের মুখেই এমন কথায় শোনা যাচ্ছে। মুজিব আদর্শ “বুকে নয় মুখে” এবং মুজিব কোর্ট পরেন “আদর্শ নয় স্বার্থ হাসিলে”। বিজয়ের ৫০ বছরে এসেও ঐ ঘাতক মোশতাকদের মত এই কামরুলদের এখনোও মুজিব কোট পরেই ঘুরে বেড়াতে দেখা যায় দেশের বিভিন্ন জায়গায়। ভবিষ্যতের ফায়দা লুটতে সেই উদ্দেশ্য নিয়েই মাঠে নেমেছেন এই খন্দকার মোশতাক রুপী ভালো মানুষ বেশে থাকা ভন্ড প্রতারক কামরুল , এদের থেকে সাবধানে থাকতে বলেছেন দলের সিনিয়র নেত্রীবৃন্দ । এরা গোটা জাতির শ্ত্রু এমনটাই বলছিলেন ১নং চরামদ্দি ইউনিয়ন আওয়ামিলীগের নেত্রীবৃন্দ। এই কামরুল খান সেনাবাহিনীতে কর্মরত থাকাকালীন সময়ে যে পদে ছিলেন তিনি সেই পদ পদবী মাঠেঘাটে উচ্চদরে বিক্রি করে বেড়াচ্ছেন। তিনি অকারনেই এখানে সেখানে অনৈতিকভাবে পদবি ব্যবহার করছেন এবং গাওসেল আলম লালকে নিয়ে অনবরত কুরুচিপূর্ণ মানহানিকর মিথ্যা বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন।তিনি নিজেকে সহজে রাজনৈতিক ফিগার বানানোর লোভেই এসব করছেন এমনটাই বলছেন চরামদ্দি এলাকাবাসী। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী , দীর্ঘ ২৩ টি বছরের সফল চেয়ারম্যান- জনাব আলহাজ্ব গাওসেল আলম খান লালকে নিয়ে একের পর এক মিথ্যা বক্তব্য দিয়ে জনমনে বিভ্রান্ত সৃষ্টি করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। আইন বহিঃভূত যে সব বয়ান বা কাজ করে যাচ্ছেন তার সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন  বলে জানিয়েছেন বাকেরগঞ্জের সিনিয়র নেত্রীবৃন্দ।

এই সংবাদটি 97 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ