কে হচ্ছেন নৌকার প্রার্থী?

প্রকাশিত: ৪:৪৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২১, ২০২১

কে হচ্ছেন নৌকার প্রার্থী?
এস এম রাফি, চিলমারী(কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধিঃ
আগামী ৩১ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হবে উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের নিবার্চন। নিবার্চনকে ঘিরে আওয়ামী লীগের নৌকা মনোনয়ন প্রত্যাশীদের বাছাই প্রক্রিয়ায় ঝুলে গেছে ৩ ইউনিয়নের ১১ জনের ভাগ্য। চায়ের স্টল থেকে সরকারি – বেসরকারি দপ্তরসহ সবখানে আলোচনা-
বিচার বিশ্লেষণ একটাই- কে হচ্ছেন সেই সৌভাগ্যবান ৩ প্রার্থী?
আওয়ামী লীগের তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের ভোটে একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশীর নাম
আসায় নৌকার মাঝি কে হচ্ছেন তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে কেন্দ্রের ঘোষণা পর্যন্ত। ওই ৩ ইউনিয়ন হচ্ছে থানাহাট, রাণীগঞ্জ ও রমনা।
জানাগেছে, থানাহাট ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন ২ জন।
থানাহাট ইউনিয়ন আ,লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক মিলন ও উপজেলা আ,লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু হানিফা রঞ্জ। তৃণমূল ৬৯ নেতা-কমর্ীর
মধ্যে ৬৪ জন প্রার্থী বাঁচাই প্রক্রিয়ায় অংশ নেন। এতে আব্দুর রাজ্জাক মিলন ৩৫ ভোট ও
আবু হানিফা রঞ্জু পান ২৯ ভোট। রাণীগঞ্জ ইউনিয়নে মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন ৪ জন।
প্রাথর্ীরা হলেন, ইউনিয়ন আ,লীগের সহ-সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জু, ইউনিয়ন আ,লীগের সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ সভাপতি সাঈদী হোসেন মিঠু, ইউনিয়ন আ,লীগ সদস্য এনামুল হক সরকার ও জেলা কৃষক লীগের সদস্য সাজেদুল ইসলাম দারোগা। তৃণমূল আ,লীগের ৬৯ নেতা-কর্মীর মধ্যে ৬৮ জন প্রার্থী বাঁচাই
প্রক্রিয়ায় অংশ নেন।
তৃণমূল আ,লীগের ভোটে এই ৪ প্রাথর্ীর মধ্যে মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জু পান ৪৭ ভোট, সাঈদ
হোসেন মিঠু ১৪ ভোট, এনামুল হক সরকার ৬ ভোট ও সাজেদুল ইসলাম দারোগা পান ১
ভোট। রমনা ইউনিয়নে মনোনয়ন প্রত্যাশি ছিলেন ৫ জন। এরমধ্যে ইউনিয়ন আ,লীগ সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান আজগর আলী সরকার, উপজেলা আ,লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সাজেদুল ইসলাম স্বপন, ইউনিয়ন আ,লীগের সদস্য মোঃ হাবিবুর রহমান, ইউনিয়ন আ,লীগের সদস্য মোঃ গওছুল আযম ও উপজেলা আ,লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মোছাঃ মাহফুজা হোসেন শিল্পী। ইউনিয়নটির তৃণমূল আ,লীগের ৬৯ নেতা-কর্মীর মধ্যে ৬৮ জন প্রার্থী বাঁচাই প্রক্রিয়ায় অংশ নেন। মনোনয়ন প্রত্যাশি এই ৫ প্রাথর্ীর মধ্যে তৃণমুল আ,লীগের ৩৪ জন মোঃ গওছুল আযমকে, ১৫ জন আজগর আলী সরকারকে, ১০ জন হাবিবুর রহমানকে, ৮ জন সাজেদুল ইসলাম স্বপনকে ও ১ জন মাহফুজা হোসেন শিল্পীকে ভোট প্রদান করেন।
এদিকে থানাহাট, রাণীগঞ্জ ও রমনা ইউনিয়নের মনোনয়ন প্রত্যাশীর নাম ঝুলে যাওয়ার পর
থেকেই এলাকাজুড়ে চলছে আলোচনা বর্তমান চেয়ারম্যানরাই কি আবারও মনোনয়ন
পাচ্ছেন, নাকি অন্য কাউকে মনোনয়ন দেয়া হচ্ছে। সব মিলিয়ে চায়ের দোকান, বাজার-
ঘাট, সরকারি-বেসরকারি অফিস থেকে শুরু করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম- সবখানে
একটাই আলোচনা- কে কেমন? কার জনপ্রিয়তা বেশি? কাকে মনোনয়ন দিলে ভালো হবে?
কে মনোনয়ন পেতে পারে? তবে শেষ পর্যন্ত নৌকার টিকিট আনছেন কে- তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে কেন্দ্রের ঘোষণা পর্যন্ত। শেষ পর্যন্ত টিকিট যেই আনুক নৌকার হয়ে কাজ করার কথা বলছেন আওয়ামী লীগ নেতারা।
অপরদিকে উপজেলার অষ্টমীর চর ও চিলমারী ইউনিয়নে তৃণমুল আ,লীগ একক প্রার্থী ঘোষণা
করেছে। এরমধ্যে অষ্টমীর চরে ইউনিয়ন আ,লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান চেয়ারম্যান আবু তালেব ফকির ও চিলমারী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান গওছল হক মন্ডল। নয়ারহাট ইউনিয়নের সীমান জটিলতায় কোর্টে মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া আপাতত নিবার্চন হচ্ছে না ইউনিয়নটিতে।উপজেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক মামুন অর রশিদ বলেন, জেলা ও উপজেলা
আ,লীগের সমন্বয়ে তৃণমুল নেতাকমর্ীদের ভোটে মনোনয়ন প্রত্যাশিদের জনপ্রিয়তা
যাচাই সম্পন্ন হয়েছে। তফসিল ঘোষণার পর কেন্দ্রে নাম পাঠানো হবে। কেন্দ্র থেকেই
চুড়ান্ত হবে মনোনয়ন প্রত্যাশির নাম।
উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য রেজাউল করিম লিচু বলেন, ওই ৩ ইউনিয়নে একাধিক প্রার্থীর নাম কেন্দ্রে পাঠানো হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যাকে যোগ্য মনে করেন তাকেই মনোনয়ন দেবেন।

এই সংবাদটি 106 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ